বৃহস্পতিবার ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২ ১৪ আশ্বিন ১৪২৯

উদ্যোক্তা ও উদ্যোক্তা গড়ার কারিগর মাহফুজুল হক
মির্জা শফিকুল ইসলাম
প্রকাশ: শনিবার, ১৭ সেপ্টেম্বর, ২০২২, ৪:৪৪ পিএম আপডেট: ১৭.০৯.২০২২ ৪:৪৮ পিএম | অনলাইন সংস্করণ

মোঃ মাহ্ফুজুল হক মুকুল

মোঃ মাহ্ফুজুল হক মুকুল

মোঃ মাহ্ফুজুল হক মুকুল, জন্ম সিরাজগঞ্জে এবং বাবার চাকরির সূত্রে বেড়ে উঠা খুলনা জেলায়। খুলনা জেলা স্কুল হতে কৃতিত্বের সাথে এসএসসি এবং খুলনা পাবলিক কলেজ হতে কৃতিত্বের সাথে এইচএসসি সম্পন্ন করে প্রাচ্যের অক্সফোর্ড খ্যাত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় হতে ব্যবস্থাপনা বিষয়ে স্নাতক এবং স্নাতকোত্তর ডিগ্রী অর্জন করেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র থাকাকালীন সময়ে বাঁধন, দেশের বৃহত্তম রক্তদাতা প্রতিষ্ঠানে সম্পৃক্ত থাকার কারণে তাকে সবাই একজন সুহৃদ হিসেবেই চিনেন। ছোটবেলা থেকেই মানুষকে কোন না কোন বিষয়ে সহযোগিতা করবার ব্যাপারে তার একটি সুপ্ত স্বপ্ন ছিল।

তার ব্যবসার হাতে ঘড়ি ষষ্ঠ শ্রেণিতে পড়া অবস্থা থেকেই। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ২য় বর্ষে পড়াকালীন সময় তিনি ব্যবসা করতেন। এই সময়ে তার পার্টনার তাদের ব্যবসার টাকাগুলো তার ফ্যামিলির কাজে খরচ করে ফেলে। যদিও সে বিপদে পড়েই এমনটি করেছিলো তথাপি একারণেই ব্যবসা ছেড়ে দিতে হয়। কারণ একবার বিশ্বাস ভেঙ্গে গেলে তা জোড়া লাগা কঠিন। যদিও সে টাকাগুলো ফেরত দিয়েছিলো।। তারপর থেকে অনেকদিন ব্যবসা করা হয়নি। ২০০৫ সালে পড়ালেখা শেষ করে ওপেক্স সিনহা টেক্সটাইলে যোগদান করেন। কিছুদিন পড় মনে হয় এই সেক্টর তার জন্য না। অল্পকিছুদিন চাকুরী করে চাকরী ছেড়ে দেন। ২০০৬ সালে মাইডাসে যোগদান করেন তার মূল কাজ ছিলো উদ্যোক্তা উন্নয়ন প্রশিক্ষণ করানো। বাংলাদেশের প্রায় ৫০ টি জেলাতে তার উদোক্তা উন্নয়ন প্রশিক্ষক হিসাবে কাজ করার অভিজ্ঞতা রয়েছে। এসএমই ফাউন্ডেশন, শেখ হাসিনা যুব প্রশিক্ষণ কেন্দ্র, সুনামগঞ্জ ওইমেন চেম্বার অব কমার্স, পটুয়াখালি ওইমেন চেম্বার অব কমার্স, বরিশাল উইমেন চেম্বার অব কমার্স, দিনাজপুর ইউমেন চেম্বার অব কমার্স, স্টান্ডার্ড চার্রাড ব্যাংক, প্রাইম ব্যাংক, ব্যাংক এশিয়া, ব্রাক ব্যাংক, ইউরোপীয় ইউনিয়ন, ওয়াল্ড ব্যাংক, আইএফসি- এসইডিএফ, এডিবি, ইউএনডিপি, আইএলও, আইওএম, আইডিএলসি ফাইন্যান্স, মাইডাস ফাইনান্স, ব্রাক, শক্তি ফাউন্ডেশন, এডিডি, ঢাকা আহ্সানিয়া মিশন, পিকেএসএফ ইত্যাদি প্রতিষ্ঠান ও এর বিভিন্ন প্রকল্পে পরামর্শক ও প্রশিক্ষক হিসাবে কাজ করার অভিজ্ঞতা রয়েছে।
মোঃ মাহ্ফুজুল হক মুকুল

মোঃ মাহ্ফুজুল হক মুকুল


২০১৩ সালে মাইডাস ছেড়ে দিয়ে বাংলাদেশ-জাপান ট্রেইনিং ইনিস্টিউটে যোগদান করেন। ২০১৮ সালে এটি ছেড়ে দিয়ে ইউরোপীয় ইউনিয়নের একটি প্রকল্পে উদ্যোক্তা উন্নয়ন পরামর্শক হিসাবে যোগদান করেন। ২০১৯ এ প্রকল্পটি শেষ হয়ে গেলে ২০১৯ এ রিজেন্ট এভিয়েশন একাডেমিতে মহাব্যবস্থাপক হিসাবে যোগদান করেন। ২০২০ এর মার্চে করোনা শুরু হলে প্রতিষ্ঠানটি লিভ ইউদাউট পে ঘোষণা করে। প্রথমবারের মতো জীবন থমকে যায়। এরপর পারমিদা নামে একটি অনলাইন শপে হেড অফ ইনিস্টিউটিশনাল সেলস হিসাবে যোগদান করেন। এভিয়েশন একাডেমি বন্ধ হওয়ার আগেই অনলাইন ব্যবসা করার জন্য একটি পেজ খুলে রাখেন। অনলাইন শপ থেকে কিছুটা প্রয়োজন ও পুনরায় উদ্যোক্তা হওয়ার অনেকদিনের ইচ্ছা বাস্তবায়নের জন্য কাজে লেগে পড়েন। তিনি ও তার স্ত্রী দুজনে মিলে মাত্র ২৫,০০০ টাকা নিয়ে ২০২০ সালের সেপ্টেম্বর মাসে ব্যবসা শুরু করেন। প্রতিষ্ঠানের নামকরণ করা হয় ‘অর্ডার’।

তার স্ত্রী জান্নাতুল ফেরদৌস নীলা স্বত্ত্বাধিকারী ও মাহফুজুল হক মুকুল সিইও এর দায়িত্বে পালন করে আসছেন। তদের নেটওয়ার্কিং ভালো থাকার কারণে ব্যবসা সম্প্রসারণ করতে তেমন বেগ পেতে হয়নি। প্রথম রাত ১২ টায় সিরাজগঞ্জের তাঁতের জামদানী শাড়ি পোস্ট করে রাত ৩ টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রিয় ছোট ভাই ফয়সাল প্রথম জামদানী শাড়ি অর্ডার করেন। এ থেকেই কাজের গতি বেড়ে যায়। অল্প কয়েকদিনের মধ্যেই অনেকগুলো শাড়ি, লুঙ্গি, গামছা বিক্রি হয়ে যায়। প্রথম ১০ জন ক্রেতা অর্ডার থেকে কাপড় জাতীয় কোন পণ্য কিনলে ৫-১০% ডিসকাউন্ট পায় এবং এটি আজীবন পাবে। এখন 'অর্ডার' এর প্রায় ৮০ টির উপরে খাঁটি/অর্গানিক/সেমি অর্গানিক পণ্য আছে। রয়েছে সিরাজগঞ্জের ঐতিহ্যবাহী তাঁতের জামদানী, গামছা, যবের ছাতু, পাবনার লুঙ্গি, ঘি, কুষ্টিয়ার তোয়ালে, ঢেঁকিছাটা লাল আউশ চাল, ঢেঁকিছাটা লাল আউশ চিকন চাল, টেপাবোরো লাল চাল, দিনাজপুরের কাটারীভোগ সিদ্ধ চাল, কাটারীভোগ পোলাউ চাল, চিনিগুড়া চাল, কাটারীভোগ ঢেঁকিছাটা আতপ চিড়া, বান্দরবানের লাল, সাদা, কালো বিন্নি চাল, রাজমা, ফেলন ডাল, কাজু বাদাম, কাঠ বাদাম, চীনা বাদাম, আখরোট, পেস্তা বাদাম, পামকিন সীড, সানফ্লাওয়ার সীড, ওয়াটারমিলন সীড, ফ্লাক্স সীড, চিয়া সীড, গুড়ের মুরালী, কক্সবাজারের কেমিক্যাল ফ্রি কাচকি, মলা, চিংড়ি, লইট্টা শুটকি, খেজুরের পাটালি, ঝোলা ও দানাদার গুড়। বাসা থেকেই ব্যবসা করা এবং ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা রয়েছে অনলাইনের পাশাপাশি অফলাইনেও কাজ করার। 

মাহফুজুল হক মুকুলের মূল স্বপ্ন হলো বাংলাদেশের সকল বিখ্যাত পণ্য ‘অর্ডার’ এ অন্তর্ভুক্ত করা। ব্যবসায়ের প্রতিবন্ধকতার মধ্যে কুরিয়ারে পণ্য আনা (অল্প আনার কারণে খরচ বেড়ে যায়) পরিমান বেশী হলে ট্রাক ভাড়া করে আনা যেত যার ফলে খরচ কমে যেত), পার্সেল সার্ভিস ঠিক মতো ক্যাশ অন ডেলিভারি করা পণ্যের টাকা না দেওয়া, কুরিয়ারের চার্জ বেড়ে যাওয়া, কুরিয়ারে পণ্য নষ্ট হয়ে যাওয়া, ডলারের দাম বেড়ে যাওয়া ও ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে জ্বালানী তেলের মূল্য ইত্যাদি বেড়ে যাওয়ায় পণ্যের উৎপাদন খরচ ও দাম বেড়ে যাওয়া। 

গ্রাহকেরা তাদের পেজের মাধ্যমে ও হোয়াটসঅ্যাপ নাম্বারে (০১৭১১১৯৪০৭০, ০১৭২৬৪৩০০৪৪, ০১৬১১১৯৪০৭০) কল করে বা ম্যাসেস দিয়ে ঢাকার মধ্যে হোম ডেলিভারি পেতে পারেন। ঢাকার বাইরে কুরিয়ার সার্ভিসের মাধ্যমে পণ্য পেতে পারেন।

‘অর্ডার’এর সিইও মাহফুজুল হক মুকুল মনে করেন ,"দেশে বেশি বেশি উদ্যোক্তা তৈরীর মাধ্যমে বেকারত্ব দূরীকরণ সম্ভব একই সাথে উদ্যোক্তা হিসেবে যদি মেধাবীরা অংশগ্রহণ করে তাহলে মানসম্মত পণ্য সকলের হাতে পৌঁছানো সম্ভব যা দেশের অর্থনীতিতে গতিশীলতা আনবে এবং ভবিষ্যতে তা দেশের সীমানা পেরিয়ে বিদেশের মাটিতে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করতে সহায়ক হবে।"

স্বদেশপ্রতিদিন/ইমরান 

« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »






সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত

এই ক্যাটেগরির আরো সংবাদ

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মোঃ মজিবুর রহমান চৌধুরী
প্রকাশক: স্বদেশ গ্লোবাল মিডিয়া লিমিটেড-এর পক্ষে মোঃ মজিবুর রহমান চৌধুরী কর্তৃক আবরন প্রিন্টার্স,
মতিঝিল ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও ১০, তাহের টাওয়ার, গুলশান সার্কেল-২ থেকে প্রকাশিত।
ফোন: +৮৮০২-৮৮৩২৬৮৪-৬, মোবাইল: ০১৪০৪-৪৯৯৭৭২। ই-মেইল : e-mail: swadeshnewsbd24@gmail.com, info@swadeshpratidin.com
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মোঃ মজিবুর রহমান চৌধুরী
প্রকাশক: স্বদেশ গ্লোবাল মিডিয়া লিমিটেড-এর পক্ষে মোঃ মজিবুর রহমান চৌধুরী কর্তৃক আবরন প্রিন্টার্স,
মতিঝিল ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও ১০, তাহের টাওয়ার, গুলশান সার্কেল-২ থেকে প্রকাশিত।