বৃহস্পতিবার ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২ ১৪ আশ্বিন ১৪২৯

কুষ্টিয়ায় দেড় মাসে ১৩ খুন
ফয়সাল চৌধুরী, কুষ্টিয়া প্রতিনিধি
প্রকাশ: সোমবার, ১৫ আগস্ট, ২০২২, ৪:৪০ পিএম | অনলাইন সংস্করণ

কুষ্টিয়ায় দেড় মাসে ১৩ খুন

কুষ্টিয়ায় দেড় মাসে ১৩ খুন

কুষ্টিয়ায় একের পর এক হত্যাকাণ্ডের ঘটনা বেড়েই চলেছে। হত্যাকান্ডের বিষয়ে উদ্বিগ্ন সাধারণ মানুষসহ সচেতন মহল। প্রশ্নবিদ্ধ হয়ে পড়েছে কুষ্টিয়ার আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি। জুলাই মাসে প্রথম থেকে এই পর্যন্ত অর্থাৎ গত দেড় মাসে শিক্ষার্থী, সাংবাদিক ও চাকরিজীবীসহ খুন হয়েছেন ১৩ জন মানুষ। এতে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের এই জনপদের জনমনে বাড়ছে আতঙ্ক। এসব হত্যাকাণ্ডের রহস্য উন্মোচনে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সফলতাও খুব একটা দৃশ্যমান না। তবে কুষ্টিয়া জেলা পুলিশ বলছে, আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় তারা দিনরাত কাজ করছে।

স্থানীয় পত্রপত্রিকা ও সংশ্লিষ্ট থানার রেকর্ডবুক বলছে, কুষ্টিয়ায় জুলাই মাসের শুরু থেকে ১০ আগস্ট পর্যন্ত ১২ জন খুন হয়েছেন। যে পরিস্থিতিকে স্থানীয় নাগরিকরা ২০০৮-০৯ সালের পরিস্থিতির সঙ্গে তুলনা করছে; যখন লাশ নিত্যদিনের বিষয়ে পরিণত হয়েছিল। এতে নিরাপত্তাহীনতা বাসা বেঁধেছে জনমনে। এছাড়াও চুরি ও ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটছে অনেক বেশি।

শুক্রবার (৫ আগস্ট) হরিপুরে আওয়ামীলীগ নেতা কুদ্দুস ও তার সহযোগীদের হামলার শিকার হন দুই সাংবাদিক। তারা হলেন: বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ফোরাম কুষ্টিয়া জেলা শাখার সাংগঠনিক সম্পাদক আবু মনি সাকলায়েন এলিন ও নির্বাহী সদস্য শাহারিয়া ইমন রুবেল। এছাড়াও ওই দিন ওপেন অস্ত্র নিয়ে মহড়া দিয়ে তারা সাংবাদিক রিজুকে হত্যার হুমকি দেয়।

জানা যায়, ১ জুলাই কুষ্টিয়ার গড়াই নদী থেকে দীপ্ত বাগচী নামে এক কলেজছাত্রের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। একই দিন দৌলতপুর উপজেলায় পদ্মা নদীতে খোকন নামে একজনের ভাসমান লাশ উদ্ধার হয়। ৩ জুলাই কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলার খয়েরচরা গ্রামে কাজলী খাতুন নামের এক গৃহবধূ খুন হন।

চারদিন পর ৭ জুলাই কুমারখালী উপজেলার নির্মাণাধীন যদুবয়রা সেতুর নিচ থেকে উদ্ধার হয় সাংবাদিক হাসিবুর রহমান রুবেলের লাশ। ৩ জুলাই পত্রিকা অফিস থেকে নিঁখোজ হন তিনি। এ ব্যাপারে ওই দিনই কুষ্টিয়া মডেল থানায় জিডি হয়েছিল। কিন্তু রুবেলকে জীবিত উদ্ধার করতে পারেনি পুলিশ।

১০ জুলাই কুষ্টিয়ার মিরপুরে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে শওকত আলী নামে এক ব্যবসায়ীকে কুপিয়ে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। ১৭ জুলাই নিখোঁজ কলেজছাত্র নয়নকে উদ্ধারের পর হাসপাতালে নেওয়ার পথে তিনি মারা যান। ২০ জুলাই কুষ্টিয়ার বটতৈলে জমি নিয়ে বিরোধের জের ধরে ফরিদ নামে এক কৃষককে পিটিয়ে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। পরদিন ২১ জুলাই কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলার ছাতিয়ানে নজরুল মুন্সী নামে এক যুবকের লাশ উদ্ধার হয়।

১ আগস্ট হত্যার পরিশোধ নিতে কুমারখালীতে হত্যা মামলার আসামিকে কুপিয়ে হত্যা করে প্রতিপক্ষের লোকজন। ৩ আগস্ট ভেড়ামারা শহর থেকে রক্সিপেন্টের এরিয়া ম্যানেজার লোকমান হোসেনের বস্তাবন্দি লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। লাশ উদ্ধারের ২ দিন আগে থেকে তিনি নিখোঁজ ছিলেন। তিনি বাগেরহাট থেকে কুষ্টিয়ায় চাকরি সূত্রে এসে খুন হন। পাওনা টাকা আনতে গিয়ে তিনি হত্যার শিকার হন। এক্ষেত্রে র‌্যাব আসামিদের গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়।

বৃহস্পতিবার (১১ আগস্ট) কুষ্টিয়ার ভেড়ামারায় পদ্মা নদীতে মিনারুল নামে এক যুবকের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। শনিবার  কুষ্টিয়ার পুলিশ সুপার খাইরুল আলম সংবাদ সম্মেলন করে আসামি হাজির করেন এবং বলেন, এটি একটি ক্লুলেস মার্ডার ছিলো। অত্যাধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে আসামিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। 

১৪ আগস্ট কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলার সদরপুর ইউনিয়নের নওদা আজমপুর এলাকায় শ্বশুরবাড়ি থেকে মনিরা খাতুন ওরফে মিমের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। 

এসব হত্যাকাণ্ডের মধ্যে সবচেয়ে চাঞ্চল্যকর হত্যাকাণ্ড ছিল সাংবাদিক রুবেল খুন। এক মাসের বেশি সময় পেরিয়ে গেলেও এই হত্যাকাণ্ডের ক্লু এখনো উদ্ধার করতে পারেনি পুলিশ। সাংবাদিক রুবেলের লাশ পাওয়ার পর থেকে কুষ্টিয়ার গণমাধ্যম কর্মীরা প্রকৃত হত্যাকারীদের গ্রেপ্তারের দাবিতে বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকে নানান কর্মসূচি দেন। এখন পর্যন্ত প্রশাসন এই হত্যার কোন মোটিভ উদঘাটন করতে পারেনি। 

এ বিষয়ে কুষ্টিয়া নাগরিক কমিটির সাধারণ সম্পাদক ও ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে আইন বিভাগের অধ্যাপক ড. সেলিম তোহা বলেন, আইন ভঙ্গ করার প্রবণতা বাড়ছে। কেন হত্যাকাণ্ড সংঘটিত হচ্ছে, তা খুঁজে দেখার জন্য তিনি প্রশাসনের প্রতি আহ্বান জানান। এছাড়াও নাগরিক সমাজের পক্ষে উদ্বেগ প্রকাশ করেন।

কুষ্টিয়া প্রেসক্লাব কেপিসি ও সাংবাদিক ইউনিয়ন কুষ্টিয়ার সভাপতি হাজী রাশেদুল ইসলাম বিপ্লব বলেন, কুষ্টিয়ার আইনশৃঙ্খলা আইনশৃঙ্খলা চরম অবনতি হয়েছে। রাত পোহালে জেলার কোথাও না কোথাও লাশ পাওয়া যাচ্ছে। সেই সাথে পাল্লা দিয়ে বেড়েছে চুরি ও ছিনতাই।  কুষ্টিয়ার এক সময় রক্তাক্ত জনপদের কথা আবার স্মরণ করে দিয়েছে বর্তমান পরিস্থিতি। সাংবাদিক রুবেল সহ গত দেড় মাসে ১৩ জন খুন হয়েছেন। সাধারণ মানুষ চরম উৎকণ্ঠার মধ্যে দিন কাটাচ্ছে। বাইরে গেলে ঘরে নিরাপদে ফিরবে কিনা তা নিয়ে পরিবারের লোকজন  চরম আতংকের মধ্যে আছে।

স্বদেশপ্রতিদিন/ইমরান

« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »






সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত

এই ক্যাটেগরির আরো সংবাদ

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মোঃ মজিবুর রহমান চৌধুরী
প্রকাশক: স্বদেশ গ্লোবাল মিডিয়া লিমিটেড-এর পক্ষে মোঃ মজিবুর রহমান চৌধুরী কর্তৃক আবরন প্রিন্টার্স,
মতিঝিল ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও ১০, তাহের টাওয়ার, গুলশান সার্কেল-২ থেকে প্রকাশিত।
ফোন: +৮৮০২-৮৮৩২৬৮৪-৬, মোবাইল: ০১৪০৪-৪৯৯৭৭২। ই-মেইল : e-mail: swadeshnewsbd24@gmail.com, info@swadeshpratidin.com
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মোঃ মজিবুর রহমান চৌধুরী
প্রকাশক: স্বদেশ গ্লোবাল মিডিয়া লিমিটেড-এর পক্ষে মোঃ মজিবুর রহমান চৌধুরী কর্তৃক আবরন প্রিন্টার্স,
মতিঝিল ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও ১০, তাহের টাওয়ার, গুলশান সার্কেল-২ থেকে প্রকাশিত।