মঙ্গলবার ১৬ আগস্ট ২০২২ ১ ভাদ্র ১৪২৯

কদমের সৌন্দর্যে স্নিগ্ধ তিতুমীরের ক্যাম্পাস
মো. আজাদ হোসেন, তিতুমীর কলেজ
প্রকাশ: বৃহস্পতিবার, ২ জুন, ২০২২, ৯:৩৫ পিএম | অনলাইন সংস্করণ

কদমের সৌন্দর্যে স্নিগ্ধ তিতুমীরের ক্যাম্পাস

কদমের সৌন্দর্যে স্নিগ্ধ তিতুমীরের ক্যাম্পাস

আকাশে কখনো জমেছে মেঘ কখনো কাঠফাটা রোদ কখনো বা হঠাৎ করে রিমঝিম বৃষ্টি এর মাঝেই জানান দেয়  বর্ষার আগমনী বার্তা। এমন প্রখর রৌদ্রময়ের পর যখন বৃষ্টি নামে তখনি মনে লাগে প্রশান্তির ছোয়া।বছরে ছয় ঋতু আষাঢ়-শ্রাবণ এ দুই মাস বর্ষা কাল।বর্ষাকালে প্রকৃতি সাজে তার নিজের মতো করে।

সবুজ পাতার ফাঁকে হলুদ কদম ফুল সৃষ্টি করেছে নান্দনিক এক পরিবেশ। তেমনি রাজধানীর সরকারি তিতুমীর কলেজেও  জায়গা করে নিয়েছে কদম ফুলের সৌন্দর্য। প্রতিদিনই ক্যাম্পাসের কদম ফুল গাছের মনোমুগ্ধকর দৃশ্য দেখে মুগ্ধ হচ্ছে হাজারো শিক্ষার্থী।

কদম ফুল কে বলা হয় বর্ষার ফুল।কদম ফুল বর্ষা কালে ফোটে।অন্যান্য ফুল ফলের মাঝে কদম ফুল তার রুপের মহিমা দিয়ে জায়গা করে নিয়েছে তিতুমীর কলেজ ক্যাম্পাসে।হলুদ সাদার এই ফুল এখন শোভা পাচ্ছে গাছে গাছে।কেউ কদম ফুল দিয়ে প্রিয়তমাকে জানাই ভালোবাসার কথা।কদম ফুলের সুগন্ধে মুখরিত হয়েছে ক্যাম্পাস।বেশিরভাগ শিক্ষার্থীদের হাতে দেখা মিলেছে কদম ফুল।

কদম ফুল হাতে নিয়ে পুরো ক্যাম্পাস ঘুরে ভিজতে চায় কিংবা গুজে দিবো প্রিয়তমার খোপায় কদম ফুল।এমনি ভাবনা শুরু হয়েছে প্রেমিক হৃদয়ে।

কদম নামটি এসেছে সংস্কৃত কদম্ব থেকে। যার অর্থ হলো, ‘যা বিরহীকে দুঃখী করে’। প্রাচীন সাহিত্যের একটি বিশাল অংশ জুড়ে রয়েছে কদম ফুল।

বর্ষার প্রকৃতির আবেগে পড়েনি এমন মানুষ পাওয়া দুর্বিসহ।কবি থেকে শুরু করে বর্ষার প্রেমে মহীয়ান হয়েছেন সাধারণ মানুষও।বর্ষা মানেই কদম ফুলের মেলা দেশের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গুলোতে।এর ব্যতিক্রম নয় রাজধানীর সরকারি তিতুমীর কলেজ ক্যাম্পাস।

তাই তো কবি জীবনানন্দ দাশ বলেছেন, বাদলদিনের প্রথম কদম ফুল,বাদল-দিনের প্রথম কদম ফুল করেছ দান,আমি দিতে এসেছি শ্রাবণের গান ।

ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি ডিপার্টমেন্টের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী মোহাম্মদ  নাসিম ইকবাল বলেন, প্রতিটা মানুষ সৌন্দর্যের পূজারী। তাই তো আমরা সবাই সুন্দরের পিছে ছুটি। আমাদের সমাজকে যে সব উপকরণ সৌন্দর্যময় করে গড়ে তুলে তার মধ্যে অন্যতম ফুল।
বলতে গেলে ফুলকে আমরা সৌন্দর্যের প্রতীক হিসেবে ধরে নিতে পারি।কিন্তু,আমাদের কলেজে এই সৌন্দর্যের প্রতীক ফুলকে অযথা ছিঁড়ে নষ্ট করা হচ্ছে। আমাদের কলেজে কদম ফুলের কিছু গাছ আছে। এই সময়ে আমরা লক্ষ্য করছি কদম ফুল কি সুন্দর হয়ে ফুটে আছে গাছের সবুজ ডালে। তার হলুদ রঙে রাঙিয়ে দিচ্ছে আমাদের কলেজ ক্যাম্পাস।তবে কিছু কিছু ছাত্র-ছাত্রীরা আছে যারা ক্যাম্পাসের এই সুন্দর মনরম পরিবেশটাকে ধ্বংস করে দিচ্ছে সেই কদম ফুল ছিড়ে।আসলে আমাদের জানা উচিত বন্যেরা যেমন বনে সুন্দর,শিশুরা যেমন মাতৃকোলে, তেমন ফুলেরাও গাছে সুন্দর।সেটা আপনার হাতে সুন্দর নয়।

ম্যানেজমেন্ট ডিপার্টমেন্টের শিক্ষার্থী সোহানুর রহমান বলেন, আমরা যারা গ্রামে বড় হয়েছি তাদের সবারই কদমফুল নিয়ে অনেক স্মৃতি রয়েছে এটা বলার অপেক্ষা রাখে না। বড় হয়েছি, গ্রাম ছেড়ে শহরে এসেছি পড়াশোনা শেষ করে জীবিকার উদ্দ্যেশ্যে। পড়াশোনা, পরীক্ষা টিউশনি এই ব্যস্ততার মাঝে ক্যাম্পাস টা আমাদের একটা স্বস্তির জায়গা ক্লান্তি গুলো কেমন যেন ঝড়ে যায় ক্যাম্পাসে বন্ধুদের সাথে আড্ডায় বসলে। সাথে যদি সেই ছোট বেলার ফেলে আসা স্মৃতি গুলো সামনে চলে তাহলে ব্যাপার অসাধারণ ভাবে জমে ওঠে। হ্যাঁ কদম ফুলের কথা বলছি গ্রীষ্মের এই সময়টাতে গ্রামে যেমন ছোট বেলায় কদম ফুল নিয়ে খেলা করতাম বন্ধুদের সাথে ক্যাম্পাসে কদমফুল দেখে তেমনি একটা আনন্দ অনুভুত হয়।

« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »






সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত

এই ক্যাটেগরির আরো সংবাদ

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মোঃ মজিবুর রহমান চৌধুরী
প্রকাশক: স্বদেশ গ্লোবাল মিডিয়া লিমিটেড-এর পক্ষে মোঃ মজিবুর রহমান চৌধুরী কর্তৃক আবরন প্রিন্টার্স,
মতিঝিল ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও ১০, তাহের টাওয়ার, গুলশান সার্কেল-২ থেকে প্রকাশিত।
ফোন: +৮৮০২-৮৮৩২৬৮৪-৬, মোবাইল: ০১৪০৪-৪৯৯৭৭২। ই-মেইল : e-mail: [email protected], [email protected]
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মোঃ মজিবুর রহমান চৌধুরী
প্রকাশক: স্বদেশ গ্লোবাল মিডিয়া লিমিটেড-এর পক্ষে মোঃ মজিবুর রহমান চৌধুরী কর্তৃক আবরন প্রিন্টার্স,
মতিঝিল ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও ১০, তাহের টাওয়ার, গুলশান সার্কেল-২ থেকে প্রকাশিত।