বুধবার ২৮ জুলাই ২০২১ ১৩ শ্রাবণ ১৪২৮

গ্রাহক সেবাকে আরো সমৃদ্ধ করলো বিকাশ
স্বদেশ ডেস্ক
প্রকাশ: সোমবার, ১৯ জুলাই, ২০২১, ৫:০০ পিএম | অনলাইন সংস্করণ

সংগৃহীত ছবি

সংগৃহীত ছবি

ঢাকার পার্শ্ববর্তী শ্রমঘন এলাকা গাজীপুর, সাভার এবং চট্টগ্রামের কালুরঘাটে নতুন চারটি কেন্দ্র চালু করার মাধ্যমে আরো সমৃদ্ধ হলো বিকাশ গ্রাহক সেবা। এই চারটিসহ মোট ২৭৯টি গ্রাহক সেবা কেন্দ্রের পাশাপাশি হটলাইন নাম্বার ১৬২৪৭, লাইভ চ্যাট, সাপোর্ট মেইল, ফেসবুক সহ বিভিন্ন মাধ্যমে ২৪ ঘন্টাই গ্রাহকদের সব ধরণের সেবা নিশ্চিত করছে বিকাশ।

গাজীপুরের বাঘের বাজার ও কাশিমপুর, সাভারের হেমায়েতপুর এবং চট্টগ্রামের কালুরঘাটে চালু হওয়া এই কেন্দ্রগুলো এসব এলাকার শ্রমিকসহ সব গ্রাহকের বিকাশ সেবাকে আরো সহজলভ্য করবে। শ্রমিকরা যারা বিকাশের মাধ্যমে বেতন পান তারা এই সেবা কেন্দ্রগুলো থেকে বিশেষভাবে উপকৃত হবেন।

২৪ ঘন্টাই নিরবচ্ছিন্ন সেবা 
কেবল গ্রাহক সেবা কেন্দ্র নয়, বিকাশ গ্রাহকরা ১৬২৪৭ এ কল করে যেকোনো সময় যেকোনো স্থান থেকে নিরবচ্ছিন্ন সেবা নিতে পারছেন। পাশাপাশি ইমেইলের মাধ্যমে [email protected],  অথবা লাইভ চ্যাট https://livechat.bkash.com কিংবা বিকাশের ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজ https://www.facebook.com/bkashlimited এর মাধ্যমেও রাত-দিন যেকোন সময় সেবা গ্রহণ করতে পারছেন গ্রাহক।
এছাড়া অন্যান্য সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম যেমন গুগল ম্যাপ, ইউটিউব, ইন্সটাগ্রাম এবং গুগল প্লে স্টোর ও অ্যাপল অ্যাপ স্টোর এর অ্যাপ রিভিউ অংশ থেকেও সেবা পেয়ে থাকেন গ্রাহক।

এদিকে কোনো অভিযোগ থাকলে সরাসরি [email protected] - এই ইমেইল ঠিকানায় যোগাযোগের সুযোগও রয়েছে।
গ্রাহক সেবা কেন্দ্র সহ সবগুলো সেবা চ্যানেলে সারাদেশে ছড়িয়ে থাকা ৫ কোটি ৪০ লাখ গ্রাহককে নিরবচ্ছিন্ন সেবা দিয়ে যাচ্ছে বিকাশ। 

সেবা কেন্দ্রের খোঁজ
গ্রাহকরা বিকাশ অ্যাপের ম্যাপ অপশন ব্যবহার করে দেশের ৬৪ জেলার যেকোনো প্রান্ত থেকে তাঁর নিকটস্থ গ্রাহক সেবা কেন্দ্র সহজেই খুঁজে নিতে পারছেন। বিকাশ ম্যাপ থেকে গ্রাহক সেবা কেন্দ্রের ঠিকানা খুঁজে পেতে অ্যাপের হোমস্ক্রিনে ডানদিকের বিকাশ লোগো থেকে ম্যাপ নির্বাচন করতে হবে। ম্যাপের নিচের অংশে গ্রাহক সেবা লোগোতে ট্যাপ করলে গ্রাহকরা তার নিকটস্থ ৫টি গ্রাহক সেবা কেন্দ্রের অবস্থান দেখতে পারবেন। ‘লিস্ট দেখুন’ বাটন থেকে অথবা যেকোনো গ্রাহক সেবা এর উপর ট্যাপ করে ‘রুট দেখান’ অপশন থেকে সেখানে যাওয়ার পথ নির্দেশনাও পাবেন গ্রাহক।
তাছাড়া বিকাশের ওয়েবসাইট https://www.bkash.com/support/locator/agent-locator থেকেও বিকাশ গ্রাহক সেবা কেন্দ্রের ঠিকানা এবং যোগাযোগের বিস্তারিত তথ্য জানার সুযোগ রয়েছে।

সাধারণ সময়ে সকাল ৯টা থেকে সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত সেবা পেতে পারেন গ্রাহকরা। তবে করোনাকালে সেবা কেন্দ্রগুলো থেকে সেবা নেয়ার সময় সকাল ৯টা থেকে বিকাল ৪টা। নির্দিষ্ট এলাকা ভেদে গ্রাহকসেবা কেন্দ্রের সময়সূচীতে কিছুটা ভিন্নতা রয়েছে। উল্লেখ্য, সেবা কেন্দ্রে গ্রাহক থাকা পর্যন্ত সেবা নিশ্চিত করা হয়। এছাড়া, সেবা কেন্দ্রের বাইরে স্থাপিত ড্রপ বক্সেও যেকোনো সময় সেবার অনুরোধ জানাতে পারেন গ্রাহক।

সেলফ পিন রিসেট
বিকাশ গ্রাহকরা ‘সেলফ পিন রিসেট’ ব্যবহার করে নিজেই নিজের পিন রিসেট করতে পারেন। পিন ভুলে গেলে বা কয়েকবার ভুল পিন দেয়ার কারণে অ্যাকাউন্ট সাময়িক বন্ধ হয়ে গেলে দুই ধাপে পিন রিসেট এর সুযোগ রয়েছে। ইউএসএসডি কোড *২৪৭# ডায়াল করে অথবা বিকাশ অ্যাপ থেকে এই সেবা নিতে পারেন গ্রাহক। https://www.bkash.com/node/4117 - এই লিংকে ক্লিক করলে পিন রিসেট করার প্রক্রিয়া বিস্তারিত জানা যাবে।

বিশেষ সেবা
বিকাশের মাধ্যমে জিটুপি পদ্ধতিতে উপবৃত্তি, সামাজিক সুরক্ষা খাতের ভাতা, সরকারের প্রণোদনা পাওয়া সুবিধাভোগীদের জন্য এলাকাভেদে বিশেষ গ্রাহক সেবার ব্যবস্থা করে থাকে বিকাশ। এ ক্ষেত্রে অ্যাকাউন্ট সম্পর্কিত কোনো সমস্যা হলে এই কেন্দ্রগুলো থেকে খুব সহজেই প্রয়োজনীয় সেবা নিতে পারেন প্রান্তিক এই সুবিধাভোগীরা।

এছাড়া বইমেলা, বাণিজ্যমেলা, গরুর হাট ইত্যাদি জায়গায়ও বিকাশ গ্রাহক সেবার ব্যবস্থা করা হয়ে থাকে যা গ্রাহকদের এনে দেয় বাড়তি স্বস্তি।

স্বদেশ প্রতিদিন/নিশাদ

« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »






সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত

এই ক্যাটেগরির আরো সংবাদ

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ ওয়াকিল উদ্দিন
সম্পাদক: রফিকুল ইসলাম রতন

প্রকাশক: স্বদেশ গ্লোবাল মিডিয়া লিমিটেড-এর পক্ষে মোঃ মজিবুর রহমান চৌধুরী কর্তৃক আবরন প্রিন্টার্স,
মতিঝিল ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও ১০, তাহের টাওয়ার, গুলশান সার্কেল-২ থেকে প্রকাশিত।
ফোন: ৯৮৫১৬২০, ৮৮৩২৬৪-৬, ফ্যাক্স: ৮৮০-২-৯৮৯৩২৯৫। ই-মেইল : e-mail: [email protected], [email protected]
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ ওয়াকিল উদ্দিন
সম্পাদক: রফিকুল ইসলাম রতন
প্রকাশক: স্বদেশ গ্লোবাল মিডিয়া লিমিটেড-এর পক্ষে মোঃ মজিবুর রহমান চৌধুরী কর্তৃক আবরন প্রিন্টার্স,
মতিঝিল ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও ১০, তাহের টাওয়ার, গুলশান সার্কেল-২ থেকে প্রকাশিত।