রোববার ১৩ জুন ২০২১ ৩০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮

বিজিএফের অর্থ বিতরণে বিড়ম্বনা!
এম.এ হান্নান, বাউফল প্রতিবেদক
প্রকাশ: বুধবার, ১২ মে, ২০২১, ১১:০৬ পিএম | অনলাইন সংস্করণ

বিজিএফের অর্থ বিতরণে বিড়ম্বনা!

বিজিএফের অর্থ বিতরণে বিড়ম্বনা!

পটুয়াখালীর বাউফলে জোড়াখুন মামলার প্রধান আসামী কেশবপুর ইউপি চেয়ারম্যানের প্রতি   পরিষদ পরিচালনায়  ওই ইউনিয়ন পরিষদের সদস্যবৃন্দের অনাস্থা ও দলীয় নেতাকর্মীদের ক্ষোভ    থাকায় ঈদুল ফিতর উপলক্ষ্যে দুস্থ ও অসহায় পরিবারের মধ্যে বিজিএফ কর্মসূচির চালের সমপরিমাণ অর্থ বিতরণে চরম বিড়ম্বনার সৃষ্টি হয়েছে। এঘটনায় স্থানীয় আওয়ামলীগ নেতাকর্মী ও জনগণের মধ্যে ব্যাপক উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। পরে এসিল্যান্ডের নেতৃত্বে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনা হয়। বিতরণ করা বিজিএফ কর্মসূচির নগদ অর্থ। 

বুধবার (১২ মে) এমন ঘটনা ঘটে উপজেলার কেশবুপর ইউনিয়ন পরিষদ চত্বরে। 

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, ঈদুল ফিতর উপলক্ষ্যে কেশবপুর ইউনিয়নের ৪ হাজার ৫শ২০ তালিকাভুক্ত দুস্থ পরিবারকে বিজিএফ কর্মসূচির চালের পরিবর্তে সমপরিমান ৪শ৫০ টাকা নিতে বুধবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে পরিষদ চত্বের আসতে বলা হয়। যথাসময়ে উপস্থিত হয় উপকারভোগীরা। চেয়ারম্যান নিরাপত্তাহীনতার কারন দেখিয়ে যথা সময়ে পরিষদ আসেননি চেয়ারম্যান। পরে বেলা ২টার দিকে পুলিশ পাহারায় পরিষদে আসেন চেয়ারম্যান। তবে তাতেও দুস্থদের মাঝে অর্থ বিতরণ করা সম্ভব হয়নি। চেয়ারম্যান পরিষদে আসায় মেম্বারগণ পরিষদ ত্যাগ করে চলে যান। পরিষদের বাহিরে আওয়ামীলীগ দলীয় নেতাকর্মীরা ও স্থানীয় জনগণ চেয়ারম্যানের বিচারের দাবীতে বিভিন্ন সেøাগান দিতে থাকে। শুরু হয় ব্যাপক উত্তেজনা।  এতে করে পুলিশ পাহারায় পরিষদ ত্যাগ করতে বাধ্য হয় চেয়ারম্যান। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসলে  সহকারি কমিশনার (ভূমি) আনিচুর রহমান বালির উপস্থিতিতে উপকারভোগীদের মাঝে ওই অর্থ বিতরণ করা হয়। 

 দলীয় সূত্র জানায়, গতনির্বাচনে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন নিয়ে কেশবপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নির্বাচত  হয় মহিউদ্দিন লাভলু। একপর্যায়ে কেশবপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ সভাপতি সালেহ উদ্দিন পিকুর সাথে রাজনৈতিক দ্বন্দ্বের শুরু হয়। ঘটনাক্রমে রাজনৈতিক দ্বন্দ্বে গতবছর ২ আগষ্ট কেশবপুর বাজারে খুন হয় সালেহ উদ্দিন পিকুর দুই ভাই ইউনিয়ন যুবলীগের সহসভাপতি রকিব উদ্দিন রুমন ও  যুবলীগকর্মী ইশাদ তালুকদার।  হত্যার ঘটনায় কেশবপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মো. মহিউদ্দিন লাভলুকে প্রধান আসামী করে হত্যা মামলা দায়ের করে নিহত রুমনের ভাই মফিজ উদ্দিন মিন্টু উচ্চ আদালত থেকে আগাম জামিন পান চেয়ারম্যান লাভলু। নিম্ন আদালতে আত্মসর্মপণ করে জামিন আবেদন করলে আদালত জেল হাজাতে প্রেরণ করে। এতে চেয়ারম্যান পদ হারায় মহিউদ্দিন লাভলু। দীর্ঘদিন জেল থেকে জামিনে মুক্ত হলে পুনরায় চেয়ারম্যান পদ ফিরে পান। তবে পরিষদের মেম্বারগণের সাথে দূরত্ব তৈরী হয় চেয়ারম্যান লাভলুর। স্থবির হয়ে পরে পরিষদের স্বাভাবিক কার্যক্রম।

 অপরদিকে গত ১০ এপ্রিল কেশবপুর ইউনিয়নের চৌমুহনী বাজারে বসতঘরে হামলা ও ভাঙচুরের ঘটনায় চেয়ারম্যান লাভলুকে প্রধান আসামী করা হয়। সেই মামলার অন্য আসামী গ্রেপ্তার হলেও অদৃশ্য কারনে তাকে পুলিশ গ্রেপ্তার না করে উল্টো পাহারা দিচ্ছেন বলে অভিযোগ করে মামলার বাদী নিলুফা বেগম। 

কেশবপুর ইউনিয়ন পরিষদের মেম্বার মো. ফোরকান আকন, মহিলা মেম্বার লিপি আক্তার ও এলিনা বেগম স্বদেশ প্রতিদিনকে বলেন,‘চেয়ারম্যান হত্যা মামলার আসামী হওয়ায় জনগণ তাঁর কাছ থেকে কোন সহায়তা নিতে চান না। জনগণ তাঁর উপর ক্ষিপ্ত।  
তাঁরা আরও বলেন,‘ চেয়ারম্যান দুই যুবলীগ নেতা হত্যা মামলার প্রধান আসামী। তিনি ইউনিয়ন পরিষদে আসেন না। আমাদের তাঁর বাসায় গিয়ে পরিষদের কার্যক্রমে অংশ নিতে বলেন। তিনি পরিষদে এসে পরিষদ পরিচালনা করবেন। তাঁর বাসায় আমরা যেতে বাধ্য নয়। 

 কেশবপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মহিউদ্দিন লাভলু বলেন,‘  দুস্থদের মাঝে বিতরণের জণ্য মঙ্গলবার (১ ১মে)  ব্যাক থেকে ২০লাখ ৩৪হাজার টাকা উত্তোলণ করা হয়। কিন্তু আমাকে ইউনিয়ন পরিষদ ভবনে যেতে মামলার বাদী পক্ষের লোকজন বাঁধা দেয়।  পরে প্রশাসন দুস্থদের মাঝে  সহায়তা বিতরণ করেন। 

এবিষয়ে কেশবপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক মো. মনিরুল ইসলাম খাঁন টিটু বলেন,‘ চেয়ারম্যান লাভলু আমার দলের দুই যুবলীগনেতা হত্যা মামলার আসামী। তিনি পুনরায় এজাতীয় ঘটনা ঘটানোর পায়তারা করছেন। তাকে কেশবপুর ইউনিয়নে কোন বিশৃঙ্খলা করতে দেওয়া হবে না। 

এবিষয়ে  উপজেলা নির্বাহী অফিসার জাকির হোসেন বলেন,‘  সহকারি কমিশনা (ভূমি) ও পুলিশের উপস্থিতিতে সহায়তার টাকা বিতরণ করা হয়েছে। যারা ফিরে গেছেন তাদেরকে আগামী কালের মধ্যে টাকা দেওয়া হবে। 


« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »






সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত

এই ক্যাটেগরির আরো সংবাদ

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ ওয়াকিল উদ্দিন
সম্পাদক: রফিকুল ইসলাম রতন

প্রকাশক: স্বদেশ গ্লোবাল মিডিয়া লিমিটেড-এর পক্ষে মোঃ মজিবুর রহমান চৌধুরী কর্তৃক আবরন প্রিন্টার্স,
মতিঝিল ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও ১০, তাহের টাওয়ার, গুলশান সার্কেল-২ থেকে প্রকাশিত।
ফোন: ৯৮৫১৬২০, ৮৮৩২৬৪-৬, ফ্যাক্স: ৮৮০-২-৯৮৯৩২৯৫। ই-মেইল : e-mail: [email protected], [email protected]
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ ওয়াকিল উদ্দিন
সম্পাদক: রফিকুল ইসলাম রতন
প্রকাশক: স্বদেশ গ্লোবাল মিডিয়া লিমিটেড-এর পক্ষে মোঃ মজিবুর রহমান চৌধুরী কর্তৃক আবরন প্রিন্টার্স,
মতিঝিল ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও ১০, তাহের টাওয়ার, গুলশান সার্কেল-২ থেকে প্রকাশিত।