বৃহস্পতিবার ৬ মে ২০২১ ২৩ বৈশাখ ১৪২৮

টেক্সাসে নিহত ৬ বাংলাদেশির দাফন সম্পন্ন
ডেস্ক রিপোর্ট
প্রকাশ: শুক্রবার, ৯ এপ্রিল, ২০২১, ৪:২২ পিএম | অনলাইন সংস্করণ

সংগৃহীত ছবি

সংগৃহীত ছবি

যুক্তরাষ্ট্রের টেক্সাসের এলেন শহরে মর্মান্তিকভাবে নিহত বাংলাদেশি একই পরিবারের ছয়জনের দাফন সম্পন্ন হয়েছে। বৃহস্পতিবার (৮ এপ্রিল) স্থানীয় সময় দুপুরে জানাজা শেষে তাদের টেক্সাসের ডেন্টন মুসলিম কবরস্থানে দাফন করা হয়। দেশের বাড়ি ঢাকা ও পাবনার স্বজনদের আর দেখা হলো না শেষবারের মতো প্রিয় মুখগুলো।

বাবা-মা, ভাই-বোন, আর নানি পাশাপাশি চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন টেক্সাসের ডেন্টন মুসলিম কবরস্থানে। পরম যত্নে গড়ে তোলা এলেন শহরের পাইন ব্লাফ ড্রাইভের ১৫১৭ নম্বর বাড়িটিতে আর কেউই রইল না। দুপুরে ইসলামিক অ্যাসোসিয়েশন অব এলেন প্রাঙ্গণে জানাজার পূর্বে শেষবারের মতো প্রিয় মুখগুলো দেখে অশ্রুসিক্ত নয়নে বিদায় জানান স্বজনরা। উপস্থিত ছিলেন প্রবাসী বাংলাদেশিরাও।

তারা বলেন, সব সন্তানের কাছে অনুরোধ বাবা ও মায়ের সাথে সব শেয়ার করো। আর বাবা-মায়ের কাছে অনুরোধ সন্তানের আরও কাছে আসুন। তাদেরকে জানতে শিখুন। 

এর আগে ময়নাতদন্ত শেষে মঙ্গলবার বাবা ও দুই ছেলের লাশ এবং পরেরদিন বুধবার মা, বোন ও নানির লাশ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করে পুলিশ।

নিহতদের দেশের বাড়ি ঢাকা ও পাবনার স্বজনদেরও তাদের প্রিয়মুখগুলো দেখার আকুতি থাকলেও কোভিড পরিস্থিতি ও বিমান জটিলতায় তা সম্ভব না হওয়ায় দাফন হয় টেক্সাসেই।

গেল সোমবার টেক্সাসের নিজ বাড়ি থেকে ভোররাতে ছয়জনের মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। চাঞ্চল্যকর এ হত্যার ঘটনাটির তদন্ত চলছে।

« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »






সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত

এই ক্যাটেগরির আরো সংবাদ

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ ওয়াকিল উদ্দিন
সম্পাদক: রফিকুল ইসলাম রতন

প্রকাশক: স্বদেশ গ্লোবাল মিডিয়া লিমিটেড-এর পক্ষে মোঃ মজিবুর রহমান চৌধুরী কর্তৃক আবরন প্রিন্টার্স,
মতিঝিল ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও ১০, তাহের টাওয়ার, গুলশান সার্কেল-২ থেকে প্রকাশিত।
ফোন: ৯৮৫১৬২০, ৮৮৩২৬৪-৬, ফ্যাক্স: ৮৮০-২-৯৮৯৩২৯৫। ই-মেইল : e-mail: [email protected], [email protected]
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ ওয়াকিল উদ্দিন
সম্পাদক: রফিকুল ইসলাম রতন
প্রকাশক: স্বদেশ গ্লোবাল মিডিয়া লিমিটেড-এর পক্ষে মোঃ মজিবুর রহমান চৌধুরী কর্তৃক আবরন প্রিন্টার্স,
মতিঝিল ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও ১০, তাহের টাওয়ার, গুলশান সার্কেল-২ থেকে প্রকাশিত।