সোমবার ১২ এপ্রিল ২০২১ ২৯ চৈত্র ১৪২৭

একই মাঠে নরেন্দ্র মোদি ও মমতার সমাবেশ!
আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশ: বুধবার, ১৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, ৬:০৫ পিএম | অনলাইন সংস্করণ

সংগৃহীত ছবি।

সংগৃহীত ছবি।

৪৮ ঘণ্টার ব্যবধানে একই মাঠে নরেন্দ্র মোদি ও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সমাবেশকে ঘিরে হুগলিতে ব্যাপক আলোচনা সৃষ্টি হয়েছে।   

প্রস্তুতি দেখতে বুধবার একইসময়ে দু’পক্ষের মাঠ পরিদর্শন বিষয়টিতে আরও উত্তাপ ছড়িয়েছে। 

২২ ফেব্রুয়ারি হুগলিতে সমাবেশ করবেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। বারবার তাই জেলা ও রাজ্য নেতারা সভার আয়োজন নিয়ে ব্যস্ত। 

বুধবার সকালে সেই মাঠে হাজির হলেন তৃণমূলের নেতারাও। কারণ একদিন পর সেখানেই সমাবেশ করবেন তৃণমূল প্রধান মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। 

এদিন সকালে মাঠ পরিদর্শনে আসেন স্থানীয় বিজেপি সংসদ সদস্য লকেট চট্টোপাধ্যায়। কিছুক্ষণের মধ্যে সেখানে পৌছে যান তৃণমূল নেতারাও। 

মাঠ পরিদর্শন করেন দলের জেলা সভাপতি দিলীপ যাদব, নেত্রী অসীমা পাত্র প্রমুখ। একই সঙ্গে দু’দলের মাঠ পরিদর্শনের সময় ছিল টান টান উত্তেজনা। 

এসময় দিলীপ সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমরা উন্নয়নের কথা বলি। প্রধানমন্ত্রী হয়তো আরও বেশ কয়েকবার আসবেন। কিন্তু সাধারণ মানুষ জানেন, তিনি বাংলার মানুষের কোনও উপকার করেননি। বাংলার সংস্কৃতি-ঐতিহ্যকে নষ্ট করেছেন। বাংলার অর্থনীতিকে ধাক্কা দেওয়ার চেষ্টা করেছেন। যিনি বাংলার উন্নয়ন করেছেন, তার নাম মমতা বন্দোপাধ্যায়।

পাল্টা মাঠ পরিদর্শনের কর্মসূচি থেকেই মমতা ও তৃণমূল সরকারকে আক্রমণ করেছে বিজেপি। তাদের দাবি- তৃণমূল ‘ভয় পেয়ে’ একই মাঠে সভা আয়োজন করেছে।

সূত্র: আনন্দবাজার পত্রিকা।

« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »






সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত

এই ক্যাটেগরির আরো সংবাদ

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ ওয়াকিল উদ্দিন
সম্পাদক: রফিকুল ইসলাম রতন

প্রকাশক: স্বদেশ গ্লোবাল মিডিয়া লিমিটেড-এর পক্ষে মোঃ মজিবুর রহমান চৌধুরী কর্তৃক আবরন প্রিন্টার্স,
মতিঝিল ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও ১০, তাহের টাওয়ার, গুলশান সার্কেল-২ থেকে প্রকাশিত।
ফোন: ৯৮৫১৬২০, ৮৮৩২৬৪-৬, ফ্যাক্স: ৮৮০-২-৯৮৯৩২৯৫। ই-মেইল : e-mail: [email protected], [email protected]
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ ওয়াকিল উদ্দিন
সম্পাদক: রফিকুল ইসলাম রতন
প্রকাশক: স্বদেশ গ্লোবাল মিডিয়া লিমিটেড-এর পক্ষে মোঃ মজিবুর রহমান চৌধুরী কর্তৃক আবরন প্রিন্টার্স,
মতিঝিল ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও ১০, তাহের টাওয়ার, গুলশান সার্কেল-২ থেকে প্রকাশিত।