সোমবার ২৫ জানুয়ারি ২০২১ ১০ মাঘ ১৪২৭

ফেনীতে মাকে কোপানোর সপ্তাহের মাথায় ছেলে আগুনে পুড়ে ছাই
এ কে আজাদ, ফেনী
প্রকাশ: বুধবার, ১৩ জানুয়ারি, ২০২১, ২:২৭ পিএম | অনলাইন সংস্করণ

ফেনীতে মাকে কোপানোর সপ্তাহের মাথায় ছেলে আগুনে পুড়ে ছাই

ফেনীতে মাকে কোপানোর সপ্তাহের মাথায় ছেলে আগুনে পুড়ে ছাই

নির্দলীয় ইউনিয়নের অলিপুর গ্রামের সোমবার দিনগত রাত ২টায় মাকে কুপানোর সপ্তাহের মাথায় ছেলে সোহাগ আগুনে পুড়ে ছাঁই। মঙ্গলবার সকালে স্থানীয়রা মো. সোহাগের ভস্মীভূত লাশ দেখে খবর দিলে পুলিশ এসে লাশ উদ্ধার করে।

স্থানীয়রা জানান, সপ্তাহ খানেক আগে সোহাগ তার মাকে কুপিয়ে আহত করে। এরপর থেকেই কিছুটা অস্বাভাবিক আচরণ শুরু করে। মায়ের কাছে টাকা না পেয়ে সে তার মাকে কুপিয়ে আহত করেছিল। সোমবার মধ্যরাতে সোহাগের বাসায় আগুন লাগে। সে আগুনেই সে পুড়ে ছাঁই হয়ে গেছে। 

স্থানীয় ওয়ার্ড মেম্বার আবুল বশর সবুজ বলেন, অলিপুর গ্রামের নুর নবীর বাড়িতে কেয়ারটেকার হিসেবে থাকেন মৃত ছালেহ আহমদের স্ত্রী নিলুফা আক্তার বালি ও মো. সোহাগসহ তার দুই ছেলে। নুর নবীর বাড়ির সবাই ঢাকা ও অন্যত্র বসবাস করেন। গত ৬ জানুয়ারি সোহাগ তার মাকে কুপিয়ে গুরুতর আহত করে। বর্তমানে তিনি ফেনী জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।  মাকে কুপিয়ে আহত করার সাতদিনের মাথায় সোহাগ নিজেই আগুনে পুড়ে লাশ হয়ে গেল।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে ফেনী মডেল থানা পুলিশের উপ-পরিদর্শক মো. ইমরান হোসেন বলেন, বিদ্যুতের শর্ট সার্কিট থেকে আগুনের সূত্রপাত হতে পারে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। তবে অন্য কোনো রহস্য আছে কিনা সেটিও খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »






সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত

এই ক্যাটেগরির আরো সংবাদ

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ ওয়াকিল উদ্দিন
সম্পাদক: রফিকুল ইসলাম রতন

প্রকাশক: স্বদেশ গ্লোবাল মিডিয়া লিমিটেড-এর পক্ষে মোঃ মজিবুর রহমান চৌধুরী কর্তৃক আবরন প্রিন্টার্স,
মতিঝিল ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও ১০, তাহের টাওয়ার, গুলশান সার্কেল-২ থেকে প্রকাশিত।
ফোন: ৯৮৫১৬২০, ৮৮৩২৬৪-৬, ফ্যাক্স: ৮৮০-২-৯৮৯৩২৯৫। ই-মেইল : e-mail: [email protected], [email protected]
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ ওয়াকিল উদ্দিন
সম্পাদক: রফিকুল ইসলাম রতন
প্রকাশক: স্বদেশ গ্লোবাল মিডিয়া লিমিটেড-এর পক্ষে মোঃ মজিবুর রহমান চৌধুরী কর্তৃক আবরন প্রিন্টার্স,
মতিঝিল ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও ১০, তাহের টাওয়ার, গুলশান সার্কেল-২ থেকে প্রকাশিত।