বৃহস্পতিবার ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১ ১২ ফাল্গুন ১৪২৭

রোহিঙ্গা সংঘাতের নেপথ্যে: আঁধারে বিপদ
কে এম মোস্তাক আহম্মেদ
প্রকাশ: বুধবার, ৩০ ডিসেম্বর, ২০২০, ৮:৫৯ পিএম | অনলাইন সংস্করণ

রোহিঙ্গা সংঘাতের নেপথ্যে: আঁধারে বিপদ

রোহিঙ্গা সংঘাতের নেপথ্যে: আঁধারে বিপদ

মিয়ানমার মাদক, অস্ত্র বাণিজ্য ও ভ্রাতৃঘাতী সংঘাত জিইয়ে রেখে বাংলাদেশকে চাপে রাখার কৌশল নিতে পারে। রোহিঙ্গাদের একটি সংগঠন সম্প্রতি এক ওয়েবিনারে এমন একটি ধারণা দেয় যে, মাদক ও অস্ত্র বাণিজ্যচক্রের বাড়বাড়ন্ত উত্থানের পেছনে মিয়ানমারের সরকার ও সামরিক বাহিনীর হাত রয়েছে। অনুমেয় যে ‘ডিভাইড অ্যান্ড রুল’ নীতি অবাস্তব ধারণা নয়। রোহিঙ্গাদের নানা উপদলে বিভক্ত ও বিবদমান রাখা গেলে তারা আর সম্মিলিত শক্তিতে বলীয়ান হতে পারবে না। কিছু দিন আগেও রাখাইন প্রদেশে আরাকান আর্মির সঙ্গে মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীর সংঘাত-সংঘর্ষ চলেছে। এই বিচ্ছিন্নতাবাদী গোষ্ঠীর সমরশক্তি প্রবাদপ্রতীম। 

শুরুতেই আন্তর্জাতিক হস্তক্ষেপ কামনা করলে মিয়ানমার বাংলাদেশের বিরুদ্ধে ঘোড়া ডিঙিয়ে ঘাস খাবার অভিযোগ তুলত। ছুতা তৈরি করত যে, বাংলাদেশ যেহেতু দ্বিপক্ষীয় প্রক্রিয়ায় সমাধানে যায়নি, দেশটি কোনো দায়িত্ব নেবে না। মিয়ানমারের সেনা সদস্যরা আরাকান আর্মির হাতে রীতিমতো নাস্তানাবুদ হচ্ছে। জানা গেছে, এই বাহিনীর হাতে স্থল হতে আকাশে নিক্ষেপযোগ্য অত্যাধুনিক মিসাইলও আছে। বাংলাদেশ রোহিঙ্গা সমস্যা নিয়ে খাবি খাচ্ছে। কারণ নানাবিধ। শরণার্থী কেন্দ্রগুলোতে অপরাধপ্রবণতাও প্রতিদিনই নতুন মাত্রা পাচ্ছে। মাত্র দুই বছরে খুনের ঘটনা ঘটেছে প্রায় একশ’টি। তার মাঝে ৬৮টিই ক্রসফায়ারজনিত। অন্য মৃত্যু ও খুনগুলোও অন্তর্দলীয় সংঘাতের ফল। ২০১৭ সাল হতে ফি বছর খুন, অপরাধ, মাদকজনিত সংঘাত, ডাকাতি, মাদকের চালান উদ্ধার সবকিছুই বেড়েছে জ্যামিতিক হারে। মনে করা হচ্ছে, খুনোখুনির কারণ মাদক ও অস্ত্র ব্যবসা। এ বছরের ৮ অক্টোবর প্রকাশিত ‘আমাদের সময়’-এর অনুসন্ধানী প্রতিবেদন মতে, রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে ৭৩১টি। আসামি ১ হাজার ৬৭১ জন। অথচ মাত্র এক বছর আগে মাদকসংক্রান্ত মামলা ছিল ৭৯টি। তালিকায় মাত্র ১৩ নেতৃস্থানীয় রোহিঙ্গা শরণার্থীর নাম ছিল। গ্রেফতার হয়েছিল ১১১ জন রোহিঙ্গা (প্রথম আলো, ২৬ আগস্ট ২০১৮ খ্রি.)। গত তিন হতে সাত অক্টোবরে একাদিক্রমে কয়েকটি খুনের ঘটনা ঘটেছে।কথা হচ্ছে এসব ভীতিকর অবস্থার জন্য কি সব রোহিঙ্গাকে দায়ী করা যাবে? উত্তর ‘মোটেই না’। 

রোহিঙ্গাদের এক ভাগেরও কম অপকর্মে জড়িত। নিরানব্বই ভাগই নিরীহ শান্তিপ্রিয় মানুষ। তাদের চাওয়া একটিইÑ জন্মস্থানের মাটিতে ফেরা। মানুষের মর্যাদা ও সম্মান নিয়ে বাঁচা; কিন্তু অপরাধপ্রবণতার ছোঁয়ায় ও দ্রুত স্বচ্ছল হয়ে ওঠার আশায় যে এক ভাগের বদলে দশ ভাগ কুড়ি ভাগই অপরাধকর্মে নেমে পড়বে না তার নিশ্চয়তা কোথায়? যতই দিন যাবে, বিপদ ততই বাড়বে। মাদক অস্ত্রের অনুষঙ্গ। মাদক বিক্রি করেই সন্ত্রাসবাদীরা অস্ত্র ক্রয়ের জন্য অর্থ সংস্থান করে। সন্ত্রাসবাদ একবার মাথাচাড়া দিয়ে উঠলে সন্ত্রাস নির্মূলের ছুতায় অন্য ক্ষমতাশালী দেশের বা দেশপুঞ্জের আগ্রাসনের উদাহরণের কমতি নেই। হিরোইন বিক্রির অর্থে অস্ত্র কিনত বলে তালেবানের বিরুদ্ধে অভিযোগ আছে। ফিলিপাইনের মিন্দানাওয়ে আবু সায়াফ গ্রুপ ও আনসার খলিফা ফিলিপাইন্সসহ বিভিন্ন গোষ্ঠীর অস্ত্র ক্রয়ের মূল উৎস মাদক চোরাচালান। 

জাতিসংঘের ড্রাগ ও অপরাধ কার্যালয়ের বিস্তারিত নথিপত্রের আলোকে বলা যায়, র‌্যান্ড ইউরোপের ২০১৭ সালের রিপোর্টেও উল্লিখিত হয়েছে যে মাদক বিক্রির অর্থ দ্বারাই সন্ত্রাসবাদী দলগুলো অস্ত্র কেনে। উত্তর আমেরিকায় ফ্রি রোহিঙ্গা কোয়ালিশন নামে প্রবাসী রোহিঙ্গাদের একটি সংগঠন সম্প্রতি এক ওয়েবিনারে এমন একটি ধারণা দেয় যে, মাদক ও অস্ত্র বাণিজ্যচক্রের বাড়বাড়ন্ত উত্থানের পেছনে মিয়ানমারের সরকার ও সামরিক বাহিনীর হাত রয়েছে। অনুমেয় যে ‘ডিভাইড অ্যান্ড রুল’ নীতি অবাস্তব ধারণা নয়। রোহিঙ্গাদের নানা উপদলে বিভক্ত ও বিবদমান রাখা গেলে তারা আর সম্মিলিত শক্তিতে বলীয়ান হতে পারবে না। যতো বেশি বিভক্তি, ততো খুন-খারাবি। মিয়ানমার আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে ততই জোর গলায় বলতে পারবে বিচ্ছিন্নতাবাদী সশস্ত্র বাহিনীদের মিয়ানমার ফেরত নেবে না। মিয়ানমারের অবস্থানটি যৌক্তিকও শোনাবে। কিছু দিন আগেও রাখাইন প্রদেশে আরাকান আর্মির সঙ্গে মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীর সংঘাত-সংঘর্ষ চলেছে। এই বিচ্ছিন্নতাবাদী গোষ্ঠীর সমরশক্তি প্রবাদপ্রতীম। মিয়ানমারের সেনা সদস্যরা আরাকান আর্মির হাতে রীতিমতো নাস্তানাবুদ হচ্ছে। জানা গেছে, এই বাহিনীর হাতে স্থল হতে আকাশে নিক্ষেপযোগ্য অত্যাধুনিক মিসাইলও আছে। আরাকান আর্মিও ইয়াবা এবং মাদক চোরাচালানের মাধ্যমে অস্ত্র কেনার টাকা জোগায় সন্দেহটিও বাজারে চালু আছে। মাদক-বাণিজ্য সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ আছে খোদ মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীর বিরুদ্ধেও। মাদক নিঃসন্দেহে হাজার-কোটি টাকার বাণিজ্যে পরিণত হয়েছে। পাচারের মূল অর্থ সূত্রে অর্থাৎ মিয়ানমারেই যাবার কথা। 

২০১৮ সালেই রিপোর্ট হয়েছে যে, মিয়ানমার সীমান্তে কমপক্ষে ৪০টি ইয়াবা ফ্যাক্টরি, ১০টি এজেন্সি এবং ক্যাম্পভিত্তিক ৫০০টি বিক্রি-বিপণনের আখড়া আছে (প্রথম আলো ২৬ আগস্ট)। ২০২০ সালে এসে সেগুলো যে কয়েকগুণ বেশি বেড়েছে তা সহজেই অনুমেয়। সম্প্রতি ধরা পড়া ১৩ লাখ ইয়াবার বাজারমূল্য ৪০ কোটি টাকা (ভোরের কাগজ, ৮ অক্টোবর, ২০২০)। সেই হিসাবে গত তিন বছরে ধরা পড়া সোয়া দশ কোটি ইয়াবার মূল্য কয়েক হাজার কোটি টাকা। এটি শুধুই ধরা পড়া ইয়াবার বাজারমূল্যের হিসাব। হয়তো পঁচানব্বই ভাগই ধরা পড়েনি। সে ক্ষেত্রে সাধারণ গণিতের হিসাবেই বাংলাদেশ মিয়ানমার সীমান্তের মাদক অর্থনীতি হাজার কোটি টাকার।যারা এ রকম হাজার কোটি টাকার অর্থনীতির মূল পাণ্ডা, তারা কখনোই চাইবে না রোহিঙ্গারা মিয়ানমারে ফেরত যাক। ক্যাম্পনিবাসী দুর্গত ১০ লাখ মানুষকে জিম্মি করে সশস্ত্র অপরাধ করবে হয়ত হাজার পাঁচেক বা দশেক রোহিঙ্গা; কিন্তু সবাই দূষবে ১০ লাখ নিরীহ আটকেপড়া ভীতিগ্রস্ত রোহিঙ্গাদের। 

মানবের স্বভাবই এমন যে, সে খুব সহজেই অতিসরলীকরণ করে বসে; কিন্তু ন্যূনতম মানবিক বিবেচনাবোধ হতে মূল্যায়ন করতে গেলেই বোঝা সহজ হবে যে, অস্ত্রের বা হত্যার হুমকির মুখে অসংখ্য নিরীহ ও নিরপরাধ রোহিঙ্গা ব্যক্তি ও পরিবার অপরাধচক্রের ক্রীড়নক হতে বাধ্য হবে। শিশু ও নারীদের আরও নারকীয় দুর্গতির মুখোমুখি হতে হবে। অস্ত্রের মুখে ফেলে যে কাউকে দিয়েই যে কোনো কিছু করানো সম্ভব। এ রকম ভীতিকর অবস্থাটি যেন তৈরি হতে না পারে, সে জন্য বাংলাদেশের আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডল হতে অপরাধ-নির্মূল সহায়তা গ্রহণের কোনোই বিকল্প নেই। কিন্তু বিপজ্জনক সত্য এই যে, মিয়ানমার বাংলাদেশের আন্তর্জাতিক সম্পর্কচেষ্টার ঘোরতরবিরোধী। দেশটির একটিই কথা রোহিঙ্গা সমস্যা বা সংকটের সমাধান হতে হবে শুধুই দ্বিপক্ষীয়। বাংলাদেশ দ্বিপাক্ষিকতার প্রতি যথার্থ সম্মান দেখিয়েই ২০১৭ সালে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন চুক্তি করেছিল। কূটনীতি-প্রক্রিয়ার প্রথম ধাপ হিসেবে চুক্তিটিকে নির্দোষ বলা চলে। শুরুতেই আন্তর্জাতিক হস্তক্ষেপ কামনা করলে মিয়ানমার বাংলাদেশের বিরুদ্ধে ঘোড়া ডিঙিয়ে ঘাস খাবার অভিযোগ তুলত। ছুতা তৈরি করত যে, বাংলাদেশ যেহেতু দ্বিপক্ষীয় প্রক্রিয়ায় সমাধানে যায়নি, দেশটি কোনো দায়িত্ব নেবে না। এই বলে গোয়ার্তুমি ও চ্যালেঞ্জ ছুড়তÑ ‘দেখি তোমরা আন্তর্জাতিক হস্তক্ষেপ দিয়ে কীভাবে কী করতে পারো?’ 

সেই অর্থে দ্বিপক্ষীয় চুক্তিটি অকুশলী না হলেও মিয়ানমারের ছলছুতো বানানো, সময়ক্ষেপণ করা এবং কূটকৌশলের হাতিয়ারে পরিণত হয়েছে। গাম্বি^য়া ইসলামিক সম্মেলন সংস্থার হয়ে আন্তর্জাতিক বিচারিক আদালতে মিয়ানমারের গণহত্যার বিরুদ্ধে মামলা করায় মিয়ানমার বাংলাদেশের ওপর ক্ষিপ্ত। সম্প্রতি দেশটি বাংলাদেশকে নানারকম যুদ্ধংদেহী উস্কানি দিতে শুরু করেছে। পাশাপাশি জাতিসংঘে বসেই বাংলাদেশকে সংকটের জন্য দায়ী করে হুমকি দিতে দ্বিধা বোধ করেনি। জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের সভায় মিয়ানমার বাংলাদেশকে প্রকারান্তরে এরকম হুমকিই দিয়েছে যেÑ আন্তর্জাতিক মহলের হস্তক্ষেপে সংকট সমাধানের চেষ্টা কোনোই কাজে আসবে না। আরও দায়ী করে বলেছে যে, বাংলাদেশ শুধু অসযোগিতাই করছে না বরং ক্যাম্পে সশস্ত্র সন্ত্রাসবাদে মদদ দিচ্ছে। 

মিয়ানমার অবলীলায় এই মিথ্যাটি জাতিসংঘে বসেই করেছে। এ কথা সত্য যে, বাংলাদেশের পক্ষ হতে মিয়ানমারকে আলোচনার টেবিলে বসানোর চেষ্টার তেমন ঘাটতি ছিল না। মিয়ানমারই ছলাকলা ও সময়ক্ষেপণের কৌশল নিয়েছিল। তবুও মিয়ানমারের হুমকি যে ‘একমাত্র’ দ্বিপক্ষীয় প্রক্রিয়াই তার কাছে গ্রহণযোগ্য এবং ‘বাংলাদেশ যেন যথার্থ আচরণ করে’ বক্তব্য সব বিবেচনাতেই উস্কানিমূলক! ভয় করার কারণ রয়েছে যে মিয়ানমার মাদক, অস্ত্র বাণিজ্য ও ভ্রাতৃঘাতী সংঘাত জিইয়ে রেখে বাংলাদেশকে চাপে রাখার কৌশল নিতে পারে। রোহিঙ্গা-নির্ভর অপরাধের রাশ এখনই টেনে ধরা না গেলে বাংলাদেশকে সীমাহীন সমস্যার মুখোমুখি হতে হবে।

লেখক : সাংবাদিক

« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »






সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত

এই ক্যাটেগরির আরো সংবাদ

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ ওয়াকিল উদ্দিন
সম্পাদক: রফিকুল ইসলাম রতন

প্রকাশক: স্বদেশ গ্লোবাল মিডিয়া লিমিটেড-এর পক্ষে মোঃ মজিবুর রহমান চৌধুরী কর্তৃক আবরন প্রিন্টার্স,
মতিঝিল ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও ১০, তাহের টাওয়ার, গুলশান সার্কেল-২ থেকে প্রকাশিত।
ফোন: ৯৮৫১৬২০, ৮৮৩২৬৪-৬, ফ্যাক্স: ৮৮০-২-৯৮৯৩২৯৫। ই-মেইল : e-mail: [email protected], [email protected]
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ ওয়াকিল উদ্দিন
সম্পাদক: রফিকুল ইসলাম রতন
প্রকাশক: স্বদেশ গ্লোবাল মিডিয়া লিমিটেড-এর পক্ষে মোঃ মজিবুর রহমান চৌধুরী কর্তৃক আবরন প্রিন্টার্স,
মতিঝিল ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও ১০, তাহের টাওয়ার, গুলশান সার্কেল-২ থেকে প্রকাশিত।