মঙ্গলবার ২২ সেপ্টেম্বর ২০২০ ৬ আশ্বিন ১৪২৭

জাহাজের মালিক ফারুক এখন রিকশাচালক
মো. আল আমিন হোসেন, রাজশাহী ব্যুরো
প্রকাশ: শনিবার, ৮ আগস্ট, ২০২০, ৫:০৪ পিএম আপডেট: ০৮.০৮.২০২০ ৫:০৫ পিএম | অনলাইন সংস্করণ

জাহাজের মালিক ফারুক এখন রিকশাচালক

জাহাজের মালিক ফারুক এখন রিকশাচালক

জাহাজ মালিক ফারুক হোসেন জীবনের সর্বোস্ব হারিয়ে এখন রিকশাচালক ! সেতু এন্টারপ্রাইজ নামে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের প্রতারণার স্বীকার হয়ে এ অবস্থা বলে অভিযোগ তার।

মোহাম্মদ ফারুক হোসেন জানান, তিনি পেশায় একজন ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী ছিলেন।  গ্রামের কর্মঠ একজন সহজ সরল মানুষ ছিলেন তিনি। নিজের স্বপ্ন পূরণ ও ছেলে- মেয়েদের ভবিষ্যৎ এর কথা চিন্তা করে নিজের কিছু জমানো অর্থ,  বসতভিটে বিক্রি ও আত্নীয়-স্বজনের থেকে ধার নেয়া সর্বমোট চল্লিশ লক্ষ টাকা খরচ করে এক বছর সময় দিয়ে একটি জাহাজ (বার্জ) তৈরি করেছিলেন ফারুক। জাহাজটি বানানোর  পর মোহাম্মদ ফারুকের পরিবার বেশ ভালো ভাবেই চলছিল। কিছুদিন যাওয়ার পর ইকবাল হোসেন নামে এক ব্যক্তির মাধ্যমে সেতু এন্টারপ্রাইজ নামের একটি ঠিকাদারি কোম্পানী’তে মাসিক চুক্তিতে তার নিজ জাহাজটি ভাড়া দেন পদ্মা সেতুর বালু, সিমেন্ট সহ বিভিন্ন মালামাল বহন করার জন্য।

চুক্তির ১৬ দিন এর সেতু এন্টারপ্রাইজ কর্তৃপক্ষের অসাবধানতায় জাহাজটিতে মাত্রাতিরিক্ত মালামাল বহন করায়   জাহাজটি পদ্মা সেতু সংলগ্ন এলাকায় ডুবে যায়। ডুবে যাওয়ার প্রায় এক মাস পার হয়ে গেলেও সেতু এন্টারপ্রাইজ কর্তৃপক্ষ জাহাজটি পানি থেকে উঠানোর কোনো ব্যবস্থা নেয়নি। যদিও ভাড়ার চুক্তিপত্রে জাহাজের যাবতীয় ক্ষয়ক্ষতির দায়ভার দ্বিতীয় পক্ষ অর্থাৎ সেতু এন্টারপ্রাইজের নেয়ার কথা। অন্যদিকে জাহাজটি উদ্ধার না হলেও চায়না কর্তৃপক্ষ পথ পরিস্কার করার জন্য অন্য তিনটি জাহাজের মাধ্যমে ডুবে যাওয়া জাহাজটিকে শিকল দিয়ে টেনে ৫০০ গজ দূরে সরিয়ে দেয়ার আরও বিপাকে পড়েছে ফারুক হোসেন।

এ বিষয়ে কথা বলার জন্য সেতু এন্টারপ্রাইজের শামীম হাসানের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করলে চুক্তির বিষয়টি অস্বীকার করে তিনি বলেন, সেতু এন্টারপ্রাইজের সাথে ফারুক হোসেনের কোন চুক্তি নাই, ইকবাল হোসেন নামে এক বালু ব্যবসায়ীর মাধ্যমে সে জাহাজটি ভাড়া খাটাতো।

উল্লেখ্য, ফারুক হোসেন (৪৫) ঝালকাঠি সদর উপজেলার মোবারক আলী হাওলাদারের ছেলে আর ইকবাল হোসেন সেতু এন্টারপ্রাইজের সাপ্লায়ার। পদ্মা সেতুর মাওয়া এলাকার চায়না প্রজেক্টে কাজ করা সেতু এন্টারপ্রাইজ এর স্বত্বাধিকারি কুষ্টিয়া জেলার ভেড়ামারা উপজেলার বুলবুল আহমেদ। 

বার্জের মালিক ফারুক সেতু এন্টারপ্রাইজের মালিকপক্ষ ইকবাল হোসেন ও শামীম হাসানের সাথে একাধিক বার যোগাযোগ ও দেখা করেও কোন সুরাহা পাননি। সেতু এন্টারপ্রাইজ কর্তৃপক্ষ আজ না কাল করতে করতে আর মিথ্যা আশ্বাস দিয়ে ঘুরাচ্ছেন। এদিকে পরিবার নিয়ে ফারুক হোসেন তার শেষ সম্বল জাহাজটি হারিয়ে সহায় সম্বলহীন হয়ে পড়েছে। তিন বেলা খাবার জোগাতে খাচ্ছেন হিমশিম। উপায়হীন হয়ে পেটের খুদার জালায় ভাত জোগাতে ফারুক এখন রাজশাহী শহরের রিকশাচালক। কান্নাজড়িত কন্ঠে ভুক্তভোগী  ফারুক হোসেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার কাছে তার জাহাজটি উদ্ধার অথবা সেতু এন্টারপ্রাইজের কাছ থেকে উপর্যুক্ত ক্ষতি পুরণ পাওয়ার জন্য হস্তক্ষেপ কামনা করেন।




« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »



সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত

এই ক্যাটেগরির আরো সংবাদ

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ ওয়াকিল উদ্দিন
সম্পাদক: রফিকুল ইসলাম রতন

প্রকাশক: স্বদেশ গ্লোবাল মিডিয়া লিমিটেড-এর পক্ষে মোঃ মজিবুর রহমান চৌধুরী কর্তৃক আবরন প্রিন্টার্স,
মতিঝিল ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও ১০, তাহের টাওয়ার, গুলশান সার্কেল-২ থেকে প্রকাশিত।
ফোন: ৯৮৫১৬২০, ৮৮৩২৬৪-৬, ফ্যাক্স: ৮৮০-২-৯৮৯৩২৯৫। ই-মেইল : e-mail: [email protected], [email protected]
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ ওয়াকিল উদ্দিন
সম্পাদক: রফিকুল ইসলাম রতন
প্রকাশক: স্বদেশ গ্লোবাল মিডিয়া লিমিটেড-এর পক্ষে মোঃ মজিবুর রহমান চৌধুরী কর্তৃক আবরন প্রিন্টার্স,
মতিঝিল ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও ১০, তাহের টাওয়ার, গুলশান সার্কেল-২ থেকে প্রকাশিত।