সোমবার ৬ জুলাই ২০২০ ২২ আষাঢ় ১৪২৭

এবার টিকটক স্টারকে হত্যা
আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশ: মঙ্গলবার, ৩০ জুন, ২০২০, ১১:৩৭ এএম | অনলাইন সংস্করণ

এবার টিকটক স্টারকে হত্যা

এবার টিকটক স্টারকে হত্যা

সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যু-শোক এখনও কাটিয়ে উঠতে পারছেন না দেশজোড়া তাঁর অগণিত ভক্তরা। এরই মধ্যে সম্প্রতি টিকটক স্টার সিয়া কক্করের আত্মহত্যার পর এবার আরেক টিকটক স্টার শিবানী কুমারীর মৃত্যু হল। তবে তিনি আত্মহত্যা করেননি, হরিয়ানার এক পার্লারের মধ্যে নৃশংসভাবে খুন করা হয়েছে তাকে।

এই হত্যার ঘটনার শিবানীর বয়ফ্রেন্ড আরিফকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। শিবানীর একটি বিউটি পার্লার রয়েছে। সেখানেই আরিফ এসে তাঁকে খুন করে। শিবানীর বোন শ্বেতা জানিয়েছেন, আরিফের সঙ্গে ফোনে কথা বলছিলেন শিবানী। এরপরই বিউটি পার্লারে এসে শিবানীকে নৃশংসভাবে খুন করে সে।

শ্বেতার দাবি অনুযায়ী, শুক্রবার রাতে বাড়ি আসবে না বলে তাকে জানিয়েছিল শিবানী। তাতে লেখা ছিল, শিবানী হরিদ্ধার যাচ্ছে বলে জানান,বাড়ি ফিরবে মঙ্গলবার। কিন্তু সোমবার শ্বেতার এক বন্ধু, নীরজ অই বিউটি পার্লারটি খুললে দুর্গন্ধ বের হয়। এরপর আলমারিপে পাওয়া যায় শিবানীর মৃতদেহ। মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে।

এরই মধ্যে গ্রেফতার করে জিজ্ঞাসাবাদ করা শুরু করা হয়েছে আরিফকে। সম্প্রতি দিল্লিতে টিকটক স্টার সিয়া কক্কর আত্মহত্যা করেন বলে পুলিশের দাবি। এরপরই অনেকেই প্রশ্ন তুলেছিলেন, সিয়ার আত্মহত্যার সঙ্গে কি সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যুর কোনও সম্পর্ক রয়েছে? যদিও দিল্লি পুলিশের তরফে স্পষ্টতই জানানো হয়, সুশান্তের মৃত্যুর সঙ্গে সিয়ার আত্মহত্যার কোনও যোগ নেই।

« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »



সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত

এই ক্যাটেগরির আরো সংবাদ

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ ওয়াকিল উদ্দিন
সম্পাদক: রফিকুল ইসলাম রতন

প্রকাশক: স্বদেশ গ্লোবাল মিডিয়া লিমিটেড-এর পক্ষে মোঃ মজিবুর রহমান চৌধুরী কর্তৃক আবরন প্রিন্টার্স,
মতিঝিল ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও ১০, তাহের টাওয়ার, গুলশান সার্কেল-২ থেকে প্রকাশিত।
ফোন: ৯৮৫১৬২০, ৮৮৩২৬৪-৬, ফ্যাক্স: ৮৮০-২-৯৮৯৩২৯৫। ই-মেইল : e-mail: [email protected], [email protected]
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ ওয়াকিল উদ্দিন
সম্পাদক: রফিকুল ইসলাম রতন
প্রকাশক: স্বদেশ গ্লোবাল মিডিয়া লিমিটেড-এর পক্ষে মোঃ মজিবুর রহমান চৌধুরী কর্তৃক আবরন প্রিন্টার্স,
মতিঝিল ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও ১০, তাহের টাওয়ার, গুলশান সার্কেল-২ থেকে প্রকাশিত।