শুক্রবার ৫ জুন ২০২০ ২২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭

নোয়াখালীতে আম্পানে ক্ষতিগ্রস্তদের পাশে দাঁড়িয়েছে সেনাবাহিনীর
গিয়াস উদ্দিন রনি, নোয়াখালী প্রতিনিধি
প্রকাশ: শুক্রবার, ২২ মে, ২০২০, ৯:৩৫ পিএম | অনলাইন সংস্করণ

নোয়াখালীতে আম্পানে ক্ষতিগ্রস্তদের পাশে দাঁড়িয়েছে সেনাবাহিনীর

নোয়াখালীতে আম্পানে ক্ষতিগ্রস্তদের পাশে দাঁড়িয়েছে সেনাবাহিনীর


ঘূর্ণিঝড় আম্পানের প্রভাবে ক্ষতিগ্রস্ত নোয়াখালীর উপকূলীয় এলাকা সুবর্নচর ও হাতিয়া উপজেলায় ত্রাণ ও চিকিৎসা সহায়তা দিয়েছে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী। এ ত্রাণ সামগ্রী পেয়ে বেজায় খুশী ক্ষতিগ্রস্থরা।

শুক্রবার দিনব্যাপী সেনাবাহিনীর কুমিল্লা সেনানিবাসের মেজর কামরুল আহসান এর নেতৃত্বে একদল সেনা সদস্য ক্ষতিগ্রস্ত এলাকার মানুষদের ঘরে ঘরে গিয়ে ত্রাণ সামগ্রী ও চিকিৎসা সামগ্রী পৌঁছে দিয়েছেন।

মেজর কামরুল আহসান জানান, হাতিয়া উপজেলার নদী তীরবর্তী ইউনিয়ন বয়ারচর এলাকা এবং সুবর্নচর উপজেলার চরক্লার্ক ও মোহাম্মদপুর ইউনিয়নে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। এসকল দূর্গত লোকদের কথা মাথায় রেখে ক্ষতিগ্রস্তদের জন্য খাদ্য সামগ্রী ওষুধ ও চিকিৎসা সামগ্রী নিয়ে শুক্রবার সকাল থেকে তাদের ঘরে ঘরে পৌঁছে দেওয়া হচ্ছে। বয়ারচরে ক্ষতিগ্রস্ত বন্যা নিয়ন্ত্রন বাঁধ ও মেরামত করে দেওয়া হয়েছে। একই সঙ্গে ঘূর্ণিঝড়ে পড়ে যাওয়া বেশ কয়েকটি ঘর সেনাবাহিনীর সহায়তায় মেরামত করে দেওয়া হয়।

এসময় উপস্থিত ছিলেন, ক্যাপ্টেন আশরাফুল ও ল্যাপ্টেনেন্ট সাখাওয়াত।

চরাঞ্চলের মানুষের দু:সময়ে সেনা সদস্যদের সহায়তা দেওয়ায় বাংলাদেশ সেনাবাহীর কাছে কৃতজ্ঞতা জানিয়েছে স্থানীয় লোকজন।

« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »



সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত

এই ক্যাটেগরির আরো সংবাদ

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ ওয়াকিল উদ্দিন
সম্পাদক: রফিকুল ইসলাম রতন

প্রকাশক: স্বদেশ গ্লোবাল মিডিয়া লিমিটেড-এর পক্ষে মোঃ মজিবুর রহমান চৌধুরী কর্তৃক আবরন প্রিন্টার্স,
মতিঝিল ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও ১০, তাহের টাওয়ার, গুলশান সার্কেল-২ থেকে প্রকাশিত।
ফোন: ৯৮৫১৬২০, ৮৮৩২৬৪-৬, ফ্যাক্স: ৮৮০-২-৯৮৯৩২৯৫। ই-মেইল : e-mail: [email protected], [email protected]
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ ওয়াকিল উদ্দিন
সম্পাদক: রফিকুল ইসলাম রতন
প্রকাশক: স্বদেশ গ্লোবাল মিডিয়া লিমিটেড-এর পক্ষে মোঃ মজিবুর রহমান চৌধুরী কর্তৃক আবরন প্রিন্টার্স,
মতিঝিল ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও ১০, তাহের টাওয়ার, গুলশান সার্কেল-২ থেকে প্রকাশিত।